রুশ বিপ্লবের কারণগুলি আলোচনা করো (১৯১৭) | Cause of the Russian Revolution (1917)


রুশ বিপ্লবের কারণ/ পটভূমি | বলশেভিক বিপ্লবের কারণ | রুশ বা বলশেভিক বিপ্লবের কারণ | রুশ বিপ্লব কেন হয়েছিল | রুশ বিপ্লবের প্রেক্ষাপট


ভূমিকা:  

বিশ্ব ইতিহাসের এক যুগান্তকারী ঘটনা হল ১৯১৭ খ্রিস্টাব্দের রুশবিপ্লব বা বলশেভিক বিপ্লব। এই বিপ্লব রাশিয়ায় স্বৈরাচারী জারতন্ত্রের অবসান ঘটিয়ে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে। বলশেভিক দলের নেতৃত্বে এই বিপ্লব ঘটেছিল বলে এর আর-এক নাম বলশেভিক বিপ্লব।


রুশ বিপ্লবের কারণ/পটভূমি 

১. জারের স্বৈরাচার :

 জার শাসনাধীন রাশিয়া ইউরােপের অন্যদেশগুলির তুলনায় অনেকটাই পিছিয়ে ছিল। রােমানভ বংশের জাররা রাশিয়ায় স্বৈরাচারী শাসনব্যবস্থা কায়েম করেছিল। স্বৈরাচারী জার শাসন থেকে মুক্তি পাওয়ার লক্ষ্যে রুশরা এই বিপ্লবে যােগ দেয়।


২. কৃষকদের দুরবস্থা :

 জার দ্বিতীয় আলেকজান্ডার ভূমিদাস প্রথার উচ্ছেদ প্রাথমিকভাবে ঘটালেও (১৮৬১ খ্রি.) রুশ কৃষকদের অবস্থার সেরকম উন্নতি ঘটেনি। মীর নামক গ্রামীণ সমিতির হাত থেকে কৃষকরা প্রাথমিকভাবে জমির মালিকানা স্বত্ব ফিরে পেয়েছিল। কিন্তু অভাবের তাড়নায় তারা সেসব জমি কুলাক নামক জোতদারদের কাছে পুনরায় বিক্রি করতে বাধ্য হয়। ফলস্বরূপ তারা দিনমজুরে পরিণত হয়। কৃষকরা তাদের এই চরম দুরবস্থা থেকে রেহাই পাওয়ার আশায় বিপ্লবের পথ বেছে নেয়।


৩. শ্রমিকদের অসন্তোষ : 

শিল্পবিপ্লবের সূত্রে রাশিয়ায় বেশ কিছু নতুন নতুন শিল্পকারখানা গড়ে ওঠে। রাশিয়ার অভিজাতদের পাশাপাশি বিদেশিরাও এই শিল্পকারখানাগুলির মালিক ছিল। অধিক মুনাফার লােভে এরা বিভিন্নভাবে শ্রমিকদের শােষণ করত। অল্প মজুরি, উদয়াস্ত পরিশ্রম, অস্বাস্থ্যকর বস্তিজীবন ইত্যাদি শ্রমিকদের জীবনকে জর্জরিত করে তােলে। ফলে রাশিয়ার শ্রমিকশ্রেণির মধ্যে অসন্তোষ দেখা দেয় এবং তারা বিদ্রোহী হয়ে ওঠে।


প্রথম বিশ্বযুদ্ধের কারণগুলি- দেখুন


৪. রুশীকরণ নীতি : 

জার-শাসিত রাশিয়ায় পােল, ফিন, বাইতলারুশ প্রভৃতি বিভিন্ন জাতিগােষ্ঠীর মানুষ বসবাস করত। প্রত্যেক জাতিরই নিজস্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ছিল। ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দের পর জার সরকার ওই সমস্ত জাতির ওপর জোর করে রুশ ভাষা, সংস্কৃতি ও কৃষ্টি চাপিয়ে দেয়। এর বিরুদ্ধে অ-রুশ জাতিগােষ্ঠীগুলি সােচ্চার হয় এবং বিপ্লবকে সমর্থন জানায়।


৫. দার্শনিক ও সাহিত্যিকদের প্রভাব : 

টলস্টয়, গাের্কি, চেখভ প্রমুখ দার্শনিক ও সাহিত্যিক তাঁদের রচনায় জারতন্ত্রের স্বৈরাচার ও রাশিয়ার প্রকৃত অবস্থা তুলে ধরেন। এইসব রচনা পড়ে রুশরা বিপ্লবী আদর্শে দীক্ষিত হয়ে ওঠে।


৬. বলশেভিক ও অন্যান্য রাজনৈতিক দলের ভূমিকা: 

রাশিয়ায় সােশ্যাল ডেমােক্রেটিক পার্টি মেনশেভিক ও বলশেভিক— এই দুই উপদলে ভাগ হয়ে বিপ্লবে নেতৃত্ব দেয়। লেনিনের নেতৃত্বে বলশেভিক দল জারতন্ত্রের অবসানের জন্য বিপ্লবের ডাক দেয়। বলশেভিক দল তাদের দলীয় পত্রিকা প্রাভদা’র মাধ্যমে বিপ্লবের প্রচার চালায়। বলশেভিক ছাড়াও সে সময়কার রাশিয়ার কৃষকদের একটি দল ও শ্রমিকদের একটি দল বিপ্লব ঘটাতে সাহায্য করে।


প্রত্যক্ষ কারণ : 

১৯১৭ সালের ৮ মার্চ রাশিয়ার বলশেভিকদের নেতৃত্বে প্রায় ৯০ হাজার শ্রমিক পেট্রোগ্রাড শহরে খাদ্যের দাবিতে ধর্মঘট শুরু করে। ১১ মার্চ জারের সেনাদলের সঙ্গে ধর্মঘটিদের সংঘর্ষ শুরু হয়। ১২ মার্চ সংঘর্ষে জিতে বিপ্লবীরা রাজধানী পেট্রোগ্রাড (বর্তমানে সেন্ট পিটার্সবার্গ-এর দখল নেয়। ১৯১৭ সালের ১৩ মার্চ অবসান ঘটে ৩০০ বছরের পুরাতন রােমানভ বংশীয় জারতন্ত্রের এবং গঠিত হয় অস্থায়ী বুশ প্রজাতান্ত্রিক সরকার।


গ্রন্থপঞ্জি: ইতিহাস শিক্ষক (জে মুখোপাধ্যায়)


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন
close