নবম শ্রেণী ইতিহাস ষষ্ঠ অধ্যায় প্রশ্ন উত্তর | West Bengal Class 9 History Suggestion

West Bengal Class 9 History Long Question Answer | Class 9 History Suggestion | নবম শ্রেণী ইতিহাস বড় প্রশ্ন উত্তর | নবম শ্রেণী ইতিহাস সাজেশন | নবম শ্রেণী ইতিহাস নোটস


WBBSE Class 9 History Suggestion: প্রিয় ছাত্র-ছাত্রীরা তোমরা যারা নবম শ্রেণীতে পাঠরত তাদের জন্য এই পোস্টটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তোমাদের ইতিহাসের প্রথম অধ্যায়ের যেসমস্ত প্রশ্ন তোমাদের পরীক্ষায় আসবে সেগুলো আলোচনা করা হয়েছে।


ষষ্ঠ অধ্যায়

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ ও তারপর


অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর

প্রশ্নের মান- ০১


১. মিউনিখ চুক্তি কবে স্বাক্ষরিত হয়?

Ans. ১৯৩৮ সালে।


২. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কবে শুরু হয়?

Ans. ১৯৩৯ সালে।


৩. "ক্যাশ অ্যান্ড ক্যারি নীতি" কোন দেশ গ্রহণ করেছিল?

Ans. আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র।


৪. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপানের প্রধানমন্ত্রী কে ছিলেন?

Ans. হিদেকি তেজো।


৫. আটলান্টিক সনদ কবে স্বাক্ষরিত হয়?

Ans. ১৯৪১ সালে।


৬. তোষণ নীতির উদ্ভাবক কে ছিলেন?

Ans. নেভিল চেম্বারলেন।


৭. ফুলটন বক্তৃতা কে দেন?

Ans. চার্চিল।


৮. রুশ-জার্মান-অনাক্রমন চুক্তি কবে স্বাক্ষরিত হয়?

Ans. ১৯৩৯ সালে।


৯. হিটলার কবে পোল্যান্ড আক্রমণ করেন?

Ans. ১৯৩৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর।


১০. কোন দিনটি D Day বা মুক্তি দিবস নামে পরিচিত?

Ans. ১৯৪৪ সালের ৬ জুন।


১১. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় আমেরিকা জাপানের কোন দুটি শহরে পারমাণবিক বোমা নিক্ষেপ করেছিল?

Ans. হিরোশিমা ও নাগাসাকি।


১২. NATO কথার অর্থ কী?

Ans. North Atlantic Treaty Organization।


১৩. দ্বিতীয়  বিশ্বযুদ্ধের সময় আমেরিকার রাষ্ট্রপতি কে ছিলেন?

Ans. রুজভেল্ট।


১৪. পটসডাম সম্মেলন কবে অনুষ্ঠিত হয়?

Ans. ১৯৪৫ সালে।



সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর:

প্রশ্নের মান- ০২


১. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে বিশ্ব কোন্ দুটি জোটে বিভক্ত হয়ে পড়ে?

Ans. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে বিশ্ব যে দুটি পরস্পর-বিরোধী জোটে বিভক্ত হয়ে পড়ে। সেগুলি হল— [1] ইটালি, জার্মানি ও জাপানকে নিয়ে গড়ে ওঠে ‘অক্ষশক্তি’, [2] ইংল্যান্ড, ফ্রান্স ও সোভিয়েত রাশিয়াকে নিয়ে গড়ে ওঠে ‘মিত্রশক্তি'।


২. ইঙ্গ-ফরাসি শক্তির ‘তোষণনীতি’ বলতে কী বোঝ?

Ans. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে ইটালির মুসোলিনি এবং জার্মানির হিটলার আগ্রাসী নীতি গ্রহণ করে বিভিন্ন দেশ আক্রমণ করলেও ইঙ্গ-ফরাসি শক্তি তা প্রতিরোধের কোনো সক্রিয় উদ্যোগ না নিয়ে ইটালি ও জার্মানির প্রতি উদাসীন নীতি গ্রহণ করে। এটি তোষণনীতি নামে পরিচিত।


৩. “ক্যাশ অ্যান্ড ক্যারি” নীতি কী?

Ans. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিরপেক্ষতার নীতি গ্রহণ করে। কিন্তু ফ্রান্সের পতনের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিষ্ক্রিয় নীতি পরিবর্তন করে বিশ্বের গণতন্ত্রী দেশগুলিকে সাহায্য করার নীতি গ্রহণ করে এবং ক্যাশ এ্যান্ড ক্যারি’ (“Cash and carry”) নীতি চালু করে। অর্থের বিনিময়ে গণতন্ত্রী দেশগুলিকে যুদ্ধাস্ত্র জোগান দেওয়াই ছিল এই নীতির মূল কথা।


৪. আটলান্টিক চার্টার কী?

উত্তর : ১৯৪১ খ্রিস্টাব্দের আগস্ট মাসে মার্কিন রাষ্ট্রপতি ফ্রাঙ্কলিন রুজভেল্ট ও ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিলযুদ্ধের বিরুদ্ধে ও শান্তিস্থাপনের উদ্দেশ্য সম্বলিত এক দলিল ঘোষণা করেন। এই দলিল আটলান্টিক চার্টার নামে পরিচিত।


৫. ‘ডি-ডে’ বা ‘মুক্তি দিবস’ সম্পর্কে কী জান? 

Ans.  মিত্রপক্ষের চার হাজারেরও বেশি সংখ্যক জাহাজে দেড় লক্ষেরও বেশি সংখ্যক সেনা ১৯৪৪ খ্রিস্ট্রাব্দের ৬ জুন ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করে ফ্রান্সের নর্মান্ডি উপকূলে অবতরণ করে এবং জার্মানির বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে। এই দিনটি ‘ডি-ডে (Deliverance Day) বা ‘মুক্তি দিবস’ নামে পরিচিত।  


৬. ‘পার্ল হারবার’ ঘটনা কী?

Ans. উত্তর প্রশান্ত মহাসাগরের হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জের পার্ল হারবারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নৌ-ঘাঁটি ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে ১৯৪১ খ্রিস্টাব্দের ৭ ডিসেম্বর জাপান পার্ল হারবার আক্রমণ করে ধ্বংস করে দেয়। এই ঘটনা ‘পার্ল হারবার’ ঘটনা নামে পরিচিত।


৭. ঠান্ডা লড়াই কাকে বলে?

Ans. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর প্রত্যক্ষভাবে যুদ্ধে লিপ্ত না হয়ে পুঁজিবাদী জোট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং সাম্যবাদী জোট সোভিয়েত রাশিয়ার মধ্যে যে পারস্পরিক রেষারেষি ও বিদ্বেষপূর্ন মনোভাবের সৃষ্টি হয়েছিল তা ঠান্ডা লড়াই নামে পরিচিত।


৮. ‘ফুলটন বক্তৃতা’ বা ‘লৌহ যবনিকা তত্ত্ব’ কী ?

Ans. ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিল ১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দে আমেরিকার মিসোরি প্রদেশের ফুলটনে ওয়েস্ট মিনিস্টার কলেজে প্রদত্ত এক বক্তৃতায় ইউরোপে রুশ প্রভাব বিস্তারের সম্ভাব্য বিপদ সম্পর্কে আমেরিকাবাসীকে সচেতন করে ইঙ্গ-মার্কিন যৌথ প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান। তার এই বক্তৃতা ‘ফুলটন বক্তৃতা’ নামে পরিচিত।


বিশ্লেষণধর্মী প্রশ্ন 

প্রশ্নের মান- ০৪


১. টীকা লেখ: মিউনিখ চুক্তি (১৯৩৮)।


২. হিটলার কর্তৃক সোভিয়েত রাশিয়া আক্রমণের কারণ আলোচনা কর।


৩. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের জন্য ভার্সাই সন্ধি কতখানি দায়ী ছিল?


৪. পার্ল হারবারের ঘটনাটি সংক্ষেপে আলোচনা কর।


৫. ইতালিতে ফ্যাসিবাদের উত্থানের কারণ লেখ।


৬. রোম-বার্লিন-টোকিও অক্ষচুক্তি কীভাবে গড়ে ওঠে?


ব্যাখ্যামূলক প্রশ্নাবলী

প্রশ্নের মান- ০৮


১. দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণ ও ফলাফল আলোচনা কর।


২. জার্মানিতে নাৎসিবাদের উত্থানের কারণ আলোচনা কর। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকা উল্লেখ কর। (৩+৫)




তথ্য সূত্র:

১. প্রাক মাধ্যমিক ইতিহাস সহায়িকা (নবম শ্রেণী)।

সম্পাদনায়: শ্রীদেবাশীষ মৌলিক।

ড: প্রণবকুমার চট্টোপাধ্যায় ও চিন্ময় দে।


২. ছায়া ইতিহাস শিক্ষক (নবম শ্রেণী)।

জীবন মুখোপাধ্যায় | সুভাষ বিশ্বাস।


৩. ইতিহাস পরিচয় (নবম শ্রেণী)।

Santra ( দাসগুপ্ত | কর | পাহাড়ী )।

 

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন
close