মাধ্যমিকের ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ন প্রশ্ন | Madhyamik History Short question suggestion


মাধ্যমিকের ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ন প্রশ্ন | Madhyamik History Short question suggestion

১. খুঁৎকাঠি প্রথা কি?

উত্তর: খুঁৎকাঠি প্রথার অর্থ জমির যৌথ মালিকানা। এটি ছিল মুন্ডাদের একটি চিরাচরিত প্রথা। ব্রিটিশ শাসনকালে খুঁৎকাঠি প্রথা উঠিয়ে দিয়ে জমিতে ব্যাক্তিগত মালিকানা প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। ঐতিহ্যবাহী এই প্রথাটি উঠিয়ে দেওয়াই ছিল মুন্ডা বিদ্রোহের প্রধান কারণ।


২. সভা সমিতির যুগ কাকে বলে? 

                  অথবা

 সভা সমিতির যুগ কি?

                    অথবা

 সভা সমিতির যুগ বলতে কি বোঝায়? 

                    অথবা

উনিশ শতককে সভা সমিতির যুগ বলা হয় কেন?


উত্তর: জাতীয় চেতনা উন্মেষের সঙ্গে সঙ্গে ভারতীয়দের মধ্যে দেশাত্মবোধের ধারণা জাগ্রত হয় এবং ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে জনমত গঠনের জন্য ভারতীয়রা সংঘবদ্ধ আন্দোলনের তাগিদ অনুভব করে। এই উপলব্ধি থেকেই উনিশ শতকে ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে বেশ কিছু রাজনৈতিক সভা ও সমিতি গড়ে উঠতে শুরু করে। এই জন্য অধ্যাপক অনিল শীল উনিশ শতককে সভা সমিতির যুগ বলে অভিহিত করেছেন।,



৩. ইলবার্ট বিল কি? 


উত্তর: ১৮৭৩ সালের ফৌজদারি আইন অনুসারে, কোনো ভারতীয় বিচারকদের ইউরোপীয়দের বিচার করার অধিকার ছিল না। লর্ড রিপন এইরূপ জাতিমূলক বৈষম্য দূর করতে তার আইন পরিষদের সদস্য। ইলবার্টকে একটি দলিল বিল পেশ করতে বলেন। এই বিলে ভারতীয় বিচারকদের ইউরোপীয় বিচারকদের সমান অধিকার দিয়ে ইলবার্ট ১৮৮৩ খ্রিস্টাব্দে যে বিল রচনা করেন, তা ইলবার্ট বিল নামে পরিচিত।


৪. তিনকাঠিয়া প্রথা কী?  


উত্তর: বিহারের চম্পরণে নীলকর সাহেবরা চাষীদের বিঘা প্রতি (৩/২০ অংশ) জমিতে নীলচাষ ও নির্দিষ্ট দামে উৎপাদিত নীল নীলকর সাহেবদের কাছে বিক্রি করতে বাধ্য থাকত। এই ব্যাবস্থাই তিন কাঠিয়া প্রথা নামে পরিচিত।


৫. চম্পারণ সত্যাগ্রহ কি? 


উত্তর: ১৯১৭ সালে বিহারের চম্পারণ জেলার নীল চাষীদের স্বার্থরক্ষার জন্য গান্ধীজি যে, সত্যাগ্রহ শুরু করেছিলেন, তা ইতিহাসে চম্পারণ সত্যাগ্রহ নামে পরিচিত।  


৬. খেদা সত্যাগ্রহ কি? 


উত্তর: গুজরাটের খেদা জেলার কৃষকদের নিয়ে সরকারি রাজস্ব বৃদ্ধির প্রতিবাদে গান্ধীজি ১৯১৮ সালে যে সত্যাগ্রহ করে করেছিলেন, তা খেদা সত্যাগ্রহ নামে পরিচিত। গান্ধীজির প্রভাবে শেষ পর্যন্ত সরকার কৃষকদের সঙ্গে আপোষ-মীমাংসায় রাজি হয়।


৭. আমেদাবাদ সত্যাগ্রহ কি? 

আমেদাবাদের সুতাকল শ্রমিকরা মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করলেও সরকার নীরব থাকে। এর ফলে শ্রমিকরা আন্দোলনমুখী হলে গান্ধীজী তাদের মধ্যস্থতা করেন। কিন্তু মালিকপক্ষ অনড় থাকায় শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষার জন্য ১৯১৮ সালে গান্ধীজী যে অনশন শুরু করেন তা, আমেদাবাদ সত্যাগ্রহ নামে পরিচিত। এই অনশনের ফলে মালিকপক্ষ আপস-মীমাংসায় রাজি হয় এবং শ্রমিকদের ৩৫ শতাংশ মজুরি বৃদ্ধি পায়।


৮. মোপলা বিদ্রোহ কি?

১৯২১ খ্রিস্টাব্দে দক্ষিণ ভারতের মালাবার অঞ্চলের কৃষকেরা জমিদার ও ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে যে আন্দোলন করেছিল তা, মোপলা বিদ্রোহ নামে পরিচিত।


৯. বারদৌলি সত্যাগ্রহ কি?


উত্তর: ১৯২৮ খ্রিস্টাব্দে গুজরাটের সুরাট জেলার বারদৌলিতে খাজনা হ্রাসের দাবিতে ব্রিটিশ সরকার ও জমিদারদের বিরুদ্ধে সর্দার বল্লভ ভাই প্যাটেলের নেতৃত্বে যে সত্যাগ্রহ আন্দোলন হয়েছিল, তা বারদৌলি সত্যাগ্রহ নামে পরিচিত। আন্দোলনের চাপে সরকার খাজনা হ্রাস করতে বাধ্য হয়েছিল।


১০. বখস্ত আন্দোলন কি?


উত্তর: 'বখস্ত' জমি বলতে খাজনা অনাদায়ে যে জমি জমিদাররা বাজেয়াপ্ত করে। এই বখস্ত জমি থেকে কৃষকদের উচ্ছেদের বিরুদ্ধে যে আন্দোলন সংগঠিত হয় (১৯৩০-৩৭ খ্রি:) তা বখস্ত আন্দোলন নামে পরিচিত। বামপন্থীরা এই আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিল।


১১. তেভাগা আন্দোলন কি?

                   অথবা

 তেভাগা আন্দোলন কাকে বলে?

                   অথবা

তেভাগা আন্দোলন বলতে কি বোঝায়।


উত্তর: ভারতের স্বাধীনতা লাভের প্রাক্কালে বঙ্গীয় কৃষক সভার উদ্যোগে এবং কমিউনিস্ট পার্টির নেতৃত্বে বাংলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে যে ভাগচাষী আন্দোলন শুরু হয়, তা তেভাগা আন্দোলন নামে পরিচিত। ১৯৪৬ সালে এই আন্দোলন সংঘটিত হয়েছিল। এই আন্দোলনে দিনাজপুরের আদিবাসী সম্প্রদায়গণ বিশেষ ভূমিকা পালন করেছিল।



১২. বেট্টি প্রথা কি? 

উত্তর: হায়দ্রাবাদের তেলেঙ্গানা অঞ্চলে কৃষকদের বাধ্যতামূলক বেগার শ্রম প্রথাকে বেট্টি প্রথা বলে।

হারি প্রথা কি?

জমিদারের জমিতে চাষীকে বিনা পারিশ্রমিকে গরু লাঙ্গল দ্বারা আবাদ করে দেওয়াকে, হারি প্রথা বলা হত। হারি প্রথা উত্তরপ্রদেশে চালু ছিল।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন
close