করোনা কী? করোনা ভাইরাসের লক্ষণ


 Coronavirus | What is Corona virus | করোনা ভাইরাস

সাম্প্রতিক বিশ্বের সবচেয়ে আলোচিত ও চর্চিত বিষয় হলো করোনা। বিশ্বব্যাপী একটি নতুন রোগের বিস্তারকেই মহামারী বলে। মানব সভ্যতা এর আগেও অনেকবার মহামারী দেখেছে। বর্তমান পৃথিবীর মানুষ আবারও এক ব্যাপক সংকটের মুখোমুখি। যে মহামারীর নাম করোনা। 

করোনা কী? (What is Corona)

করোনা একটি সংক্রামক ব্যাধি। যা সদ্য আবিষ্কৃত নোভেল করোনা ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হয়। এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শ্বাসজনিত সমস্যায় ভোগেন।

করোনা ভাইরাসের লক্ষণ (Symptoms of Corona virus)

করোনা ভাইরাসের সাধারণ লক্ষণ হল কাশি, গলা ব্যথা, জ্বর, হাঁচি, শ্বাসকষ্ট, কোনো বস্তুর গন্ধ ও স্বাদ না পাওয়া ইত্যাদি। তবে উপসর্গহীন রোগীও থাকতে পারে। উপসর্গহীন বা সামান্য আক্রান্ত ব্যক্তিরা সহজে সুস্থ হয়ে যেতে পারেন। তবে বয়স্ক মানুষ এবং যারা হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, শ্বাসকষ্ট অথবা ক্যান্সারে আক্রান্ত তাদের জন্য এই রোগ বিপদজনক।

বিশ্বে কবে প্রথম করোনা ভাইরাসের খোঁজ মিলে?

কোভিড-১৯ বা নভেল করোনা ভাইরাসে মানুষ প্রথম আক্রান্ত হয় ২০১৯ সালে। করোনা ভাইরাসের প্রথম সন্ধান পাওয়া যায় চীনের উহান প্রদেশে। অজানা জ্বরের লক্ষণ দেখে চিকিৎসকরা রোগটি শনাক্ত করার আগেই অতি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে করোনা। রোগের ভয়াবহতাকে লক্ষ্য করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সচেতনতার জন্য ২০২০ সালের ৩০ জানুয়ারি এই রোগের সংক্রমণ বিষয়ে সতর্ক করে। ২০২০ সালের ১১ মার্চ করোনা ভাইরাসকে মহামারী বলে ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

ভারতে কবে প্রথম করোনা ভাইরাসের খোঁজ মিলে?

ভারতে বিশ্বগ্রাসী করোনার প্রথম সংক্রমণের খবর পাওয়া যায় ২০২০ সালের ৩০ জানুয়ারি। ভারতে করোনা সংক্রমণ মারাত্মক আকার ধারণ করে। ২০২০ সালের আগস্ট মাসের পরিসংখ্যান অনুযায়ী এশিয়ার সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ঘটে ভারতে।

করোনা মোকাবিলার জন্য ভারতে প্রায় আড়াই মাস সম্পূর্ণ লকডাউন বহাল ছিল। যাতে মানুষদের মধ্যে শারীরিক দূরত্ব বজায় থাকে এবং সংক্রমণ রোধ করা যায়।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের উপায়

যেকোনো রোগ থেকে মুক্তির একমাত্র উপায় প্রতিষেধক বা ওষুধ। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশ পরীক্ষা নিরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে।  ইতিমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের জন্য ভ্যাকসিনও আবিষ্কৃত হয়েছে। যেমন- ভারতে তৈরি কোভ্যাক্সিন, ব্রিটেনে আবিষ্কৃত কোভিশিল্ড, আমেরিকার ফাইজার ইত্যাদি।

তবে মনে রাখা উচিত শুধুমাত্র ভ্যাকসিন নিলেই চলবে না। সেইসঙ্গে সচেতনতা ও স্বাস্থ্যবিধি মান্য করা প্রয়োজন। তাই করোনা কিভাবে ছড়ায় তা জেনে সে বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। এই মহামারীর সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য বারবার হাত ধোয়া প্রয়োজন। এছাড়া অ্যালকোহলযুক্ত স্যানিটাইজার দিয়ে হাত শোধন করার কথা বলা হয়েছে। বাইরে বেরোনোর সময় সর্বদা বিধি মেনে মাস্ক পরা ও নাক, মুখ, চোখে হাত না দেওয়ার পরামর্শ চিকিৎসকরা দিয়েছেন।


[ছাত্র ছাত্রীদের সুবিধার্তে বিভিন্ন সহায়ক গ্রন্থের সাহায্য নিয়ে সুন্দরভাবে এই প্রবন্ধটি তৈরি করা হয়েছে। তাই প্রবন্ধটি ভালো লাগলে অবশ্যই নিজের বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করবে।]

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন
close